এখন থেকে চাল-ডাল-আলু-পেঁয়াজ “অত্যাবশ্যকীয় পণ্য” নয়, সংসদে নয়া কৃষি বিল পাশ করলো মোদি সরকার - Nadia24x7

Breaking

Home Top Ad

Post Top Ad

Wednesday, September 23, 2020

এখন থেকে চাল-ডাল-আলু-পেঁয়াজ “অত্যাবশ্যকীয় পণ্য” নয়, সংসদে নয়া কৃষি বিল পাশ করলো মোদি সরকার



কৃষি বিল নিয়ে বিপর্যয়ের মুখে রাজ্যসভায় পাস হয়ে গেল আরও একটি কৃষি বিল। সাড়ে ছয় দশকের অত্যাবশ্যকীয় পণ্য আইন সংশোধিত হয়ে পাস হলো আজ। গত ১৫ সেপ্টেম্বরের পর এক মঙ্গলবার রাজ্যসভায় ধ্বনি ভোটে কৃষি বিল পাস হয়। এই বিল অনুযায়ী,অত্যাবশ্যকীয় পণ্যের আওতা থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে চাল, ডাল, আলু, পেঁয়াজ, তেলবীজ, ভোজ্য তেলের মতো কৃষিপণ্যকে।

রাষ্ট্রপতির স্বাক্ষরের পর বিলটি আইনে পরিণত হলে, এর ওপর সরকারের আর কোনো নিয়ন্ত্রণ থাকবে না। একই সঙ্গে উঠে যাবে পণ্য মজুদের উর্ধ্বসীমা। নতুন আইনের জেরে দেশি-বিদেশি বড় সংস্থার বিনিয়োগ আসবে কৃষি ক্ষেত্রে, এমনটাই মনে করছে সরকার পক্ষ।

অত্যাবশ্যকীয় পণ্য আইন চালু হয় ১৯৫৫ খ্রিস্টাব্দে। ক’রোনা মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রীর ‘আত্মনির্ভর ভারত অভিযান’ প্রকল্পের ঘোষণার সময়কালে সেই আইন সংশোধনের সূত্রপাত ঘটে। কেন্দ্রীয় সরকার গত ৫ ই জুন এই নিয়ে একটি অধ্যাদেশ জারি করেছিল। সেই সংশোধনী বিল এখন শুধু রাস্ট্রপতির সইয়ের অপেক্ষা। এরপর এই বিলটি আইনে পরিণত হবে অর্থাৎ ১৯৫৫ সালের অত্যাবশ্যকীয় পণ্য আইন সংশোধিত হবে।

শুধুমাত্র অস্বাভাবিক পরিস্থিতি যেমন অত্যধিক মূল্যবৃদ্ধি, যুদ্ধ, দুর্ভিক্ষ, ভয়াবহ প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের মতো সময়ে সরকার এই সব পণ্যের মজুত, বিক্রি বা অন্যান্য বিষয়ের উপর নিয়ন্ত্রণ করতে পারবে বলে বিলে লেখা হয়েছে।

কেন্দ্রীয় ক্রেতা সুরক্ষা, খাদ্য ও গণবণ্টন দফতরের প্রতিমন্ত্রী দানভে রাওসাহেব দাদারাও বলেন, ‘‘আইন সংশোধনী কার্যকর হলে চাষিরা ফসল উৎপাদন, মজুত, পরিবহণ, বণ্টন ও বিক্রির স্বাধীনতা পাবেন। পাশাপাশি কৃষিক্ষেত্রে বিপুল বিনিয়োগের সম্ভাবনার দরজা খুলে যাবে।’’ এই সংশোধনীতে কৃষক ও উপভোক্তা, দু’পক্ষেরই সুবিধা হবে বলে মনে করেন তিনি।

যদিও বিরোধীরা মনে করেন, এই বিল যদি পাশ হয়ে যায় তাহলে নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস একেবারে কর্পোরেট নিয়ন্ত্রনে চলে যাবে। ইচ্ছামত কম দামে পণ্য কিনে গুদামে মজুদ করে রেখে খাদ্য সংকট সৃষ্টি করতে পারবে তারা। ফলে অনেক বেশি দামে সেই সমস্ত সামগ্রী বিক্রি করবেন। মধ্যবিত্ত এবং দরিদ্র শ্রেণীর যথেষ্ট ক্ষতি হবে বলে মনে করছেন বিরোধীরা।

Post Bottom Ad