রাজ্যকে 60 হাজার স্বাস্থ্যকর্মী সুরক্ষার বন্ধনে ঘিরে রেখেছে, জানালেন মুখ্যমন্ত্রী - Nadia24x7

Breaking

Home Top Ad

Post Top Ad

Wednesday, May 6, 2020

রাজ্যকে 60 হাজার স্বাস্থ্যকর্মী সুরক্ষার বন্ধনে ঘিরে রেখেছে, জানালেন মুখ্যমন্ত্রী



চীন দেশ থেকে উৎপত্তি লাভ করা করোনাভাইরাস বিশ্ব আকাশে ছড়িয়ে একের পর এক মানুষকে আক্রান্ত করছে। প্রাণ কেড়ে নিচ্ছে লক্ষ লক্ষ মানুষের। অন্যান্য দেশের ন্যায় পশ্চিমবঙ্গেও চার হাজার মানুষের মধ্যে করোনার সংক্রমণ মিলেছে। মৃত্যু হয়েছে বহু মানুষের। করোনার সংক্রমিত রোগের খুঁজে বের করা থেকে রোগীদের চিকিৎসা করা সমস্ত কাজেই স্বাস্থ্য দফতরের কর্মীরা অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন । ফেসবুকে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় করোনা সংক্রমনের হিসেব দিতে গিয়ে এমনই কথা জানালেন। রাজ্যবাসীর উপর যত বেশি নজরদারি চালানো যাবে, সংক্রমণের বিষয়ে ততই সতর্ক থাকা যাবে, এ কথা বার বারই বলছেন বিশেষজ্ঞেরা। রাজ্য সেই কাজটা কতটা গুরুত্ব দিয়ে করছে, এ দিন তারই বিশদ হিসাব তুলে ধরার চেষ্টা করলেন মুখ্যমন্ত্রী

এদিন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পশ্চিমবঙ্গে করোনার পরিস্থিতি নিয়ে ফেসবুকে বিষাদে তথ্য উপস্থাপন করেছেন । পশ্চিমবঙ্গে করোনা পরিস্থিতি জটিল হয়ে উঠেছে একমাসও পূর্ণ হয়নি। এরই মধ্যে স্বাস্থ্য দপ্তরের আশা কর্মীরা পশ্চিমবাংলাবাসীর দরজায় দরজায় পৌঁছে গিয়ে করোনা সংক্রমিত ব্যক্তি চিহ্নিত করা থেকে কতজনের পজিটিভ রিপোর্ট এসেছে সমস্ত কিছুর বিশদে হিসাব ব্যাংক মুখ্যমন্ত্রী তাঁর ফেসবুক পেজে।

কোভিড-১৯- রোগের শিকার হয়েছেন কারা, তা খোঁজার জন্য ৭ এপ্রিল থেকে ৩ মে পর্যন্ত ৫ কোটি ৫৭ লক্ষেরও বেশি মানুষের বাড়ি গিয়ে অসুস্থতা এবং তার উপসর্গের বিষয়ে খবর নেওয়া চালাচ্ছে পশ্চিমবঙ্গের আশা কর্মীরা। তার মধ্যে মোট ৮৭২ জনের মধ্যে গুরুতর শ্বাসকষ্ট এবং ৯১ হাজার ৫১৫ জনের মধ্যে ফ্লু জাতীয় অসুস্থতা চিহ্নিত হয়। তাঁদের প্রত্যেককেই প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্য সংক্রান্ত পরামর্শ দেওয়া হয়।এ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে মোট ৩৭৫ জনকে বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়, তাঁদের মধ্যে ৬২ জনের রিপোর্ট পজিটিভ আসে।

৬০ হাজার আশা কর্মী ও স্বাস্থ্যকর্মীকে বিশেষ প্রশিক্ষণের মাধ্যমে এই কাজে লাগানো হয়েছে। মুখ্যমন্ত্রীর ভাষায় , ‘‘নজরদারি আমাদের আগে থেকে সতর্কতামূলক সঙ্কেত দেয় এবং কোভিড-১৯-এর সঙ্গে লড়তে তা এক সক্রিয় পদক্ষেপ।’’বাংলায় করোনাকে পরাস্ত না করা পর্যন্ত এই নজরদারি চলবে বলে মুখ্যমন্ত্রী এ দিন লিখেছেন।

Post Bottom Ad