Sunday, May 3, 2020

BREAKING: কাশ্মীরিদের বাঁচাতে গিয়ে শহিদ কর্নেল সহ পাঁচ, শ্রদ্ধাজ্ঞাপন রাজনাথের



গ্রামে ঢুকে একটি পরিবারকে পণবন্দি করে রেখেছিল দুই জঙ্গি৷ প্রাণের ঝুঁকি থাকলেও পিছিয়ে আসেননি নিরাপত্তা বাহিনীর জওয়ানরা৷ পণবন্দি ওই গ্রামবাসীদের বাঁচাতে গিয়েই শনিবার কাশ্মীরের হান্ডওয়ারায় শহিদ হয়েছেন এক কলোনেল সহ ভারতীয় সেনার চারজন৷ পাশাপাশি শহিদ হন জম্মু কাশ্মীর পুলিশের এক সাব ইন্সপেক্টরও৷ গোটা ঘটনা শোকপ্রকাশ করে শহিদদের সাহসিকতাকে কুর্নিশ জানিয়েছেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং৷ নিরাপত্তা বাহিনীর হাতে দুই জঙ্গিরও মৃত্যু হয়৷

রাজওয়ার জঙ্গলের কাছে ছাঙ্গিমুল্লার একটি বাড়িতে দুই জঙ্গি একটি পরিবারের কয়েকজন সদস্যকে পণবন্দি করেছে বলে খবর আসে৷ সেই খবরের ভিত্তিতেই সেনা এবং পুলিশ যৌথ অভিযানে নামে৷ কলোনেল আশুতোষ শর্মার নেতৃত্বে ২১ নম্বর রাষ্ট্রীয় ব্যাটেলিয়নের একটি দল এবং পুলিশকর্মীরা ওই এলাকা ঘিরে ফেলেন৷ তখনই পণবন্দিদের উদ্ধারে এগিয়ে যান কয়েকজন সেনা জওয়ান এবং পুলিশকর্মী৷ নিজেদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কলোনেল আশুতোষ শর্মার নেতৃত্বে মেজর অনুজ সুদ, নায়েক রাজেশ কুমার, ল্যান্স নায়েক দীনেশ সিং এবং পুলিশের সাব ইন্সপেক্টর শাকিল কাজি জঙ্গিদের একেবারে সামনে পৌঁছে যান৷ পণবন্দিদের বের করে আনতে পারলেও জঙ্গিদের গুলিতে প্রাণ যায় তাঁদের প্রত্যেকেরই৷

কলোনেল শর্মা এর আগে দু' বার কাশ্মীরে সাহসিকতার জন্য পুরস্কৃত হয়েছিলেন৷ তিনি এবং মেজর সুদ ও সাব ইন্সপেক্টর কাজি ভেবেছিলেন জঙ্গিরা হয়তো বাড়ির ভিতরে গোয়াল ঘরে আশ্রয় নিয়েছেন৷ জঙ্গিদের ঘায়েল করতে বাড়ির ভিতরে ঢুকতে যান তাঁরা৷ তখনই আচমকা তাঁদের উপর প্রবল গুলিবর্ষণ শুরু করে জঙ্গিরা৷

এর পর বাড়ির বাইরে থাকা বাহিনীর সদস্যদের সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় কলোনেল শর্মার নেতৃত্ব ভিতরে যাওয়া দলটির৷ বেশ কয়েক ঘণ্টা পর বাড়ির ভিতরে ঢুকে বাহিনীর অন্য সদস্যরা কলোনেল, মেজর সহ পাঁচজনের দেহ উদ্ধার করে৷

শহিদ সেনা জওয়ান এবং পুলিশকর্মীর বলিদানকে সম্মান জানিয়ে টুইটারে প্রতিরক্ষা মন্ত্রী লেখেন, 'কাশ্মীরের হান্ডওয়ারায় সেনাকর্মী এবং নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যদের মৃত্যু খুবই যন্ত্রণাদায়ক৷ সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে তাঁদের যে সাহসিকতা তাঁরা দেখিয়েছেন এবং দেশের সেবায় চূড়ান্ত বলিদান করেছেন, তা উদাহরণ হয়ে থাকবে৷ আমরা তাঁদের আত্মত্যাগকে কোনওদিন ভুলব না৷'

তিনি আরও লেখেন, 'লড়াইয়ের ময়দানে যে সেনা জওয়ান এবং নিরাপত্তা কর্মীরা প্রাণ দিয়েছেন, তাঁদের উদ্দেশে আমি শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করছি৷ যাঁরা প্রাণ হারিয়েছেন, তাঁদের পরিবারের যন্ত্রণা আমার হৃদয়কেও ছুঁয়ে যাচ্ছে৷ বীর শহিদদের পরিবারের সঙ্গে গোটা দেশ রয়েছে৷'

এরই মধ্যে হান্ডওয়ারার এই জঙ্গি হামলার দায় নিয়ে 'দ্য রেজিস্টেন্স ফ্রন্ট' নামে নতুন একটি জঙ্গি সংগঠন কাশ্মীরের বুকে আত্মপ্রকাশ করেছে৷ তারা নিজেদের লস্কর-ই-তৈবার সহযোগী বলেই দাবি করেছে৷ যা নিরাপত্তাবাহিনীর চিন্তা আরও বাড়াচ্ছে৷

SHARE THIS

Author:

Etiam at libero iaculis, mollis justo non, blandit augue. Vestibulum sit amet sodales est, a lacinia ex. Suspendisse vel enim sagittis, volutpat sem eget, condimentum sem.