নদীয়ার বারনিয়া শ্রীকৃষ্ণপুর এলাকার একই পরিবারের ৫জনের শরীরে করোনা ভাইরাস ধরা পড়েলো - Nadia24x7

Breaking

Home Top Ad

Post Top Ad

Saturday, March 28, 2020

নদীয়ার বারনিয়া শ্রীকৃষ্ণপুর এলাকার একই পরিবারের ৫জনের শরীরে করোনা ভাইরাস ধরা পড়েলো


নদীয়ার বারনিয়া শ্রীকৃষ্ণপুর এলাকার একই পরিবারের ৫জনের শরীরে করোনা ভাইরাস ধরা পড়েছে। এই পরিবারের মোট ১৩ জন হাসপাতলে করোনার উপসর্গ নিয়ে ভর্তি হয়। সাতজনের নমুনা সংগ্রহের পর পাঁচজনের রিপোর্ট পজিটিভ স্বাস্থ্য কেন্দ্র থেকে ১৩ জনকে বেলেঘাটা আইডি তে স্থানান্তরিত করা হচ্ছে।

 আক্রান্তরা ২৭ ও ৪৫ বছরের দুজন মহিলা, ৬ এবং ১১ বছরের দুটি বাচ্চা,এবং নয় মাসের ১টি শিশু। গত পরশু সাতজনের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়। আক্রান্ত এই পরিবার এই মাসের ১৫ ১৭এবং ১৯ তারিখ দিল্লি থেকে৩ ভাগে বারনিয়া তে আসে। মণ্ডল পরিবারের এক পুত্র অভিষেক মন্ডল লন্ডনে হোটেল ম্যানেজমেন্টের ছাত্র। 

সম্প্রতি সে দিল্লিতে আসে। বিমান থেকে নামার পর তার থার্মাল চেকিং হয়। কিন্তু কিছু ধরা পড়েনি। তার চারদিন পর জ্বরের উপসর্গ নিয়ে চিকিৎসা করাতে গেলে তার শরীরে করনা ভাইরাসের উপস্থিতি জানা যায়। বর্তমানে সে দিল্লি তে চিকিৎসাধীন। দিল্লিতে তার মাসির পরিবারের সাথে সাক্ষাৎ হয়। সম্ভবত সেখান থেকেই মাসির পরিবারের মধ্যে করো না ছড়িয়ে পড়ে। 

গত ১৯ তারিখ ট্রেনে করে মূলত এই আক্রান্ত পরিবার বারনিয়া তে আসে। এই পরিবারকেও দিল্লিতে হোম কোয়েনটাইনে থাকার পরামর্শ দিয়েছিল ডাক্তারবাবুরা। কিন্তু তারা প্রপারলি মেন্টেন করেননি। বানিয়াতি অসুস্থ বোধ করলে গত ২৩ তারিখে তেহটটো হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য যায়। ডাক্তারবাবুরা বিস্তারিত শুনে ক্রমে ক্রমে ১৩ জন কেই ভর্তি করিয়ে নেন। গত পরশু সাতজনের নমুনা সংগৃহীত হয়।

আজ পাঁচজনের নমুনা এ পজেটিভ ধরা পড়েছে। মণ্ডল পরিবারের বারনিয়া তে যেমন বসতবাড়ি রয়েছে, তেমন দিল্লিতেও নিজস্ব বাড়ি ঘর আছে। যথেষ্ট সম্ভ্রান্ত এবং শিক্ষিত পরিবার। এলাকাতেও যথেষ্ট প্রভাব-প্রতিপত্তি আছে। সম্প্রতি বারনিয়াতে আসার পর বাজার ঘাট সহ এলাকার ব্যাপক মানুষের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপন হয়েছে। এলাকাবাসী আক্রান্ত পরিবারের সঙ্গে সম্পর্কিত অন্যান্য সদস্যদের ও যথাযথ চিকিত্সার জন্য উদ্যোগী হয়েছেন। 

তবে এলাকায় চাপা ভীতির পরিবেশ তৈরি হয়েছে। আক্রান্তরা মুখ্যত মিঃ মন্ডলের বাবা, স্ত্রী, কন্যা, ২শালী, ভায়রা সহ শালির সন্তান-সন্ততিরা। যারা বর্তমানে দিল্লির বাসিন্দা।

Post Bottom Ad